BARTALIPI, বার্তালিপি , Bengali News, Latest Bengali News, Bangla Khabar, Bengali News Headlines, বাংলা খবর
Monday, 01 Mar 2021  সোমবার, ১৭ ফাল্গুন ১৪২৭
Bartalipi, বার্তালিপি, Bengali News Portal, বাংলা খবর

BARTALIPI, বার্তালিপি , Bengali News, Latest Bengali News, Bangla Khabar, Bengali News Headlines, বাংলা খবর

বাংলা খবর

বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় বাংলা নিউজ পোর্টাল

প্রাণ থাকতে বাংলায় এনআরসি-সিএএ নয়, হুঙ্কার মমতার

Bartalipi, বার্তালিপি, প্রাণ থাকতে বাংলায় এনআরসি-সিএএ নয়, হুঙ্কার মমতার

সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন (সিএএ) এবং এনআরসি নিয়ে ফের বিজেপি সরকারের বিরুদ্ধে তোপ দাগলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।‌ সোমবার রানাঘাটের সভায় দাঁড়িয়ে নাগরিকত্ব আইনকে কার্যত বিজেপির 'লোক ঠকানোর নাটক' বলে আখ্যা দিলেন তিনি। এইসঙ্গে জানিয়ে দেন, 'এনআরসি নিয়ে অসম ভুগছে। প্রাণ থাকতে এটা বাংলায় কিছুতেই করতে দেব না।'
গত শনিবার বর্ধমানে রোড শোয়ের পর বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জেপি নাড্ডা বলেছিলেন, 'সিএএ লাগু করার ব্যাপারে কেন্দ্রের বিজেপি সরকার অঙ্গীকারবদ্ধ।' তার আগে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহও বলে গিয়েছেন, করোনা টিকাকরণ প্রক্রিয়া শুরু হলেই সিএএ রূপায়ণের রূপরেখা রচনায় মন দেবে সরকার। কিন্তু এসব বক্তব্যে একেবারেই আমল দিতে নারাজ মমতা। 
এ দিন মতুয়া-গড় রানাঘাট মহকুমার ছাতিমতলার জনসভায় বিজেপির পাল থেকে সমর্থনের হাওয়া কাড়তে এ দিন নাগরিকত্ব ইস্যুকেই হাতিয়ার করে নেন মমতা। শুধু রানাঘাট নয়, গোটা নদিয়া জেলা জুড়ে ছড়িয়ে আছেন মতুয়ারা। উনিশের নির্বাচনের হিসাবে রানাঘাট লোকসভা কেন্দ্রের ৬ টি বিধানসভা ক্ষেত্রে এগিয়ে আছে বিজেপি। বনগাঁ কেন্দ্রেও বিজেপির রমরমা। তবে সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন নিয়ে কেন্দ্রীয় সরকারের বিলম্বিত চলনে অসন্তুষ্ট মতুয়ারা। এ নিয়ে সম্প্রতি বনগাঁর বিজেপি সাংসদ শান্তনু ঠাকুরের বেসুরো কথাবার্তায় অস্বস্তিতে আছে গেরুয়া শিবির। 
এই পটভূমিতে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ চলতি মাসে বঙ্গ সফরে এসে সিএএ-র রূপায়ণ নিয়ে কী বার্তা দেন, সেদিকেই তাকিয়ে আছে গোটা মতুয়া সমাজ। কিন্তু তার আগেই মতুয়া-গড়ে গিয়ে সিএএ-র প্রাসঙ্গিকতা নিয়েই প্রশ্ন তুলে দিলেন মমতা। বাংলার অন্তত ৬৭ টি বিধানসভা আসনের নির্ণায়ক শক্তি মতুয়াদের আস্থা অর্জনের জন্য পদ্ম ও ঘাসফুলের লড়াই আসন্ন ভোট রণাঙ্গনে এক বাড়তি মাত্রা যোগ করেছে।
মমতা বলেন, 'আপনারা সকলে '৭১ সাল থেকে, অর্থাৎ ৫০-৬০ বছর ধরে এদেশে রয়েছেন।‌ এরপরও নাগরিকত্বের প্রমাণ দিতে হবে! ' তীব্র কটাক্ষ করে তিনি বলেন, 'বিজেপি একটা আইন করেছে। বলছে, আমার মায়ের জন্ম কবে, আমার ঠাকুরদাদার জন্ম কবে বলতে হবে। আপনি যদি তা বলতে না পারেন, তাহলে আপনি আর এ দেশের নাগরিক নন। আপনাকে ঘাড় ধরে তাড়িয়ে দেবে। এসব চলবে না। আমরা এই আইন মানি না। যারা এসব বলছে, নির্বাচনের মাধ্যমে তাদেরই গণতান্ত্রিক ঘাড়ধাক্কা দিয়ে তাড়িয়ে দেব।'
মমতা বলেন, 'বিজেপি আসবে কীভাবে! তফশিলি, আদিবাসী,মতুয়া, নমঃশুদ্র,সংখ্যালঘুরা ওদের ভোট দেবেন? দেবেন‌ না। কেননা ওরা মানুষকে অনেক ঠকিয়েছে।' বলেন, 'নাগরিক মোয়া বিজেপি কী খাওয়াবে! এই রাজ্যে মতুয়া, নমঃশূদ্র ভাইবোনেরা সবাই দেশের নাগরিক। আমি মুখ্যমন্ত্রী হিসাবে এই বলে গেলাম। কাউকে কিছু প্রমাণ করতে হবে না।'
এনআরসি নিয়েও এ দিন সমালোচনায় সুর চড়ান মমতা। বলেন, 'ইতিমধ্যেই অসমে ১৯ লক্ষ বাঙালির নাম বাদ দেওয়া হয়েছে। মোট ২৩ লক্ষ লোকের নাম ছেঁটে দেওয়া হয়েছে। এরপরও বলছে, বাংলাতেও এটা করা হবে। প্রাণ থাকতে এই আইন লাগু করতে দেব না। এখানে ৫০ বছর ধরে যাঁরা রয়েছেন, তাঁরা কেন নাগরিক নন, তা বিজেপিকে বলতে হবে।'