BARTALIPI, বার্তালিপি , Bengali News, Latest Bengali News, Bangla Khabar, Bengali News Headlines, বাংলা খবর
Friday, 26 Feb 2021  শুক্রবার, ১৪ ফাল্গুন ১৪২৭
Bartalipi, বার্তালিপি, Bengali News Portal, বাংলা খবর

BARTALIPI, বার্তালিপি , Bengali News, Latest Bengali News, Bangla Khabar, Bengali News Headlines, বাংলা খবর

বাংলা খবর

বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় বাংলা নিউজ পোর্টাল

আইন না ফেরালে ঘরে ফেরা নয়, কেন্দ্রকে সাফ জবাব কৃষকদের

Bartalipi, বার্তালিপি, আইন না ফেরালে ঘরে ফেরা নয়, কেন্দ্রকে সাফ জবাব কৃষকদের


দু-একবার নয়, ব্যর্থ হল আটবারের বৈঠক। অষ্টম দফার কেন্দ্র-কৃষক মোর্চা আলোচনাতেও বরফ গলল না। টানা প্রায় ৪০ দিন ধরে দিল্লির সীমানায় অবস্থান চালিয়ে যাচ্ছেন আন্দোলনরত কৃষকরা। দাবি না মানা পর্যন্ত তাঁরা ঘরে ফিরতে নারাজ। শুক্রবারও সরকারের সঙ্গে আলোচনায় বসে কৃষক নেতারা জানিয়ে দেন, 'আইন বাপসি না হওয়া অবধি আমাদের ঘর বাপসি হবে না।' অর্থাৎ নতুন তিন কৃষি আইন প্রত্যাহার না হওয়া পর্যন্ত মাটি কামড়ে চলবে আন্দোলন। এ দিনের আলোচনায় স্থির হয়েছে, আগামী ১৫ জানুয়ারি উভয় পক্ষ ফের বসবে আলোচনার টেবিলে। তবে কৃষকরা হুমকি দিয়ে রেখেছেন, আলোচনা ব্যর্থ হলে আগামী ২৬ জানুয়ারি ট্রাক্টর মিছিল করে দিল্লি অচল করে দেওয়া হবে।
সূত্রের খবর, কেন্দ্রের তরফে এ দিন কৃষকদের জানানো হয়, আইন প্রণয়ন করা হয়েছে গোটা দেশের জন্য, শুধুমাত্র পঞ্জাব-হরিয়ানার জন্য নয়। কৃষকদের বক্তব্য ছিল, রাজ্যগুলো তাঁদের নিজস্ব আইন আনুক। কেন্দ্রীয় আইন প্রত্যাহারের দাবি ছেড়ে তাঁরা নড়বেন না। আলোচনার পর কেন্দ্রীয় আইনমন্ত্রী নরেন্দ্র সিং তোমর স্বীকার করে নিয়েছেন, এ দিনের বৈঠকে বড় একটা অগ্রগতি হয়নি। তিনি বলেন, 'সরকার চেয়েছিল আইন প্রত্যাহার ছাড়া কৃষকরা কোনও বিকল্প প্রস্তাব দিন, যা সরকার বিবেচনা করে দেখতে পারে। কিন্তু এরকম কোনও বিকল্প প্রস্তাব দেওয়া হয়নি। ফলে এ দিনের বৈঠক এ ভাবেই শেষ হয়েছে। স্থির হয়েছে, পরবর্তী বৈঠক হবে আগামী ১৫ ডিসেম্বর।' 
এ দিন বৈঠকে এক কৃষক নেতা কেন্দ্রীয় মন্ত্রীদের সাফ জানিয়ে দেন, 'আইন না ফেরালে আমরা ঘরে ফিরছি না।' এছাড়াও কৃষকদের তরফ থেকে বলা হয় যে সুপ্রিম কোর্টের একাধিক রায়ে বলা হয়েছে, কৃষি পুরোপুরিভাবে রাজ্যের এক্তিয়ারভুক্ত বিষয়। তাহলে কেন্দ্র কেন নাক গলাচ্ছে। জনৈক কৃষক নেতা বলেন, 'দিনের পর দিন ধরে আলোচনা হয়েই চলেছে। এখন এমন মনে হচ্ছে যে আপনারা (সরকার) আদৌ চান না সমস্যার সমাধান হোক। দয়া করে বলুন, কী চান আপনারা? এভাবে সবার সময় নষ্ট করে কী হবে!' আলোচনায় একাংশ কৃষকের হাতে দেখা যায় 'উই উইল ডু অর ডাই' পোস্টার। 
অল ইন্ডিয়া কিসান সংঘর্ষ কো-অরডিনেশন কমিটির সদস্য কবিতা কুরুবন্তি বলেন, 'সরকার কৃষক ইউনিয়নগুলোকে জানিয়ে দিয়েছে, তাঁরা আইন প্রত্যাহার করতে পারবেন না, করবেন না।' কবিতা হাজির ছিলেন এদিনের আলোচনায়। হাজির ছিলেন বিভিন্ন সংগঠনের ৪০ জন কৃষক নেতা। সরকার পক্ষে কৃষিমন্ত্রী তোমর ছাড়াও বৈঠকে ছিলেন রেল, বাণিজ্য ও খাদ্য মন্ত্রী পীযূষ গোয়েল এবং বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী সোম প্রকাশ। বিদায়ী বছরের শেষে গত আলোচনাতেও সরকারের পক্ষে তাঁরাই ছিলেন। আগের দিনের মতোই, তাৎপর্যপূর্ণভাবে, এদিনও কৃষক নেতাদের সঙ্গে বৈঠকে বসার আগে তোমর-গোয়েল-ওম প্রকাশরা একপ্রস্থ আলোচনা সেরে নেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহর সঙ্গে।