BARTALIPI, বার্তালিপি , Bengali News, Latest Bengali News, Bangla Khabar, Bengali News Headlines, বাংলা খবর
Friday, 26 Feb 2021  শুক্রবার, ১৪ ফাল্গুন ১৪২৭
Bartalipi, বার্তালিপি, Bengali News Portal, বাংলা খবর

BARTALIPI, বার্তালিপি , Bengali News, Latest Bengali News, Bangla Khabar, Bengali News Headlines, বাংলা খবর

বাংলা খবর

বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় বাংলা নিউজ পোর্টাল

বাংলাদেশি মুসলিমরা কোনওকালেই ভোট দেয়নি বিজেপি'কে : হিমন্ত

Bartalipi, বার্তালিপি, বাংলাদেশি মুসলিমরা কোনওকালেই ভোট দেয়নি বিজেপি'কে : হিমন্ত

অসমে বিভিন্ন সময়ে আসা বাংলাদেশি মুসলিমরা কখনও বিজেপিকে ভোট দেয় নি বা সমর্থন করে নি। ফলে তাদের সঙ্গে কী ঘটছে না ঘটছে তাতে বিজেপিরও কিছু যায় আসে না। সম্প্রতি জাতীয় স্তরের এক সংবাদ মাধ্যমে বিবৃতি দিতে গিয়ে এমন মন্তব্যই করেছেন রাজ্য সরকারের সেকেন্ড ইন কমান্ড ড.হিমন্ত বিশ্বশর্মা।

হিমন্ত বলেন, আসন্ন রাজ্য বিধানসভার নির্বাচনকে সামনে রেখে এই তথাকথিত বাংলাদেশি মুসলিমরা এক নতুন পন্থা নিয়ে হাঁটছে। এতে মিঞা সস্কৃতি, মিঞা স্কুল, মিঞা পোয়েট্রি ইত্যাদির প্রচার করতে চাইছে তারা। তবে, বিজেপি এধরনের চাপিয়ে দেওয়া ও উদ্দেশ্যপ্রণোদিত সংস্কৃতিকে সমাজে মাথা তুলতে দেবে না। সর্বশক্তি দিয়ে প্রতিরোধ করবে। মন্ত্রী জানান, তাই বলে নির্বাচনী লড়াই যে হিন্দু-মুসলিম ইস্যু ভত্তিক হবে তা কিন্তু নয়। কারণ, অসমিয়া মুসলিমরা কিন্তু বরাবরই ভারতীয় জনতা পার্টির সঙ্গে আছে। ফলে, আগামী নির্বাচন হবে সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য বাঁচিয়ে রাখার নির্বাচন।

রাজ্যের অর্থ, শিক্ষা ও স্বাস্থ্যমন্ত্রী হিমন্তের কথায়, কে ভোট দেবে না দেবে এই চিন্তা করে চলে না বিজেপি। দল শুধু উন্নয়নের জন্যই কাজ করে যাচ্ছে, যাবেও। ভোটব্যাংক যাচাই করে উন্নয়নের সমীক্ষা-সমীকরণ বিচার-বিবেচনা করা কংগ্রেস ও এআইইউডিএফ-এর কাজ। তবে, অসম জুড়ে যেখানে বৃহত্তর অসমিয়া সংস্কৃতি সমৃদ্ধ করতে একযোগে চলছেন সবাই, এই জায়গায় রাজ্যে মুখে মুখে মিঞা হিসেবে পরিচিত বাঙালি মুসলিমরা আলাদা সংস্কৃতি প্রতিষ্ঠায় মরিয়া, যা মোটেই বরদাস্ত নয়। আগামী নির্বাচনে মুসলিম ভোট কতটুকু প্রভাব ফেলবে এমন প্রশ্নের উত্তরে হিমন্তের জবাব ' ৩১ বা ৩২ শতাংশ ভোট গেরুয়া শিবিরকে নাড়া দিতে পারবে না। আর অসমিয়া মুসলিমরা তো বিজেপির সঙ্গে আছেই।

বিহার নির্বাচন ও বিভিন্ন রাজ্যের উপনির্বাচনে গেরুয়া দলের সাফল্য নিয়েও কথা বলেন হিমন্তবিশ্ব। তাঁর কথায়, এই ফলাফল মোদি নেতৃত্বাধীন বিজেপির ২০১৯ এর লোকসভা ভোট জয়ের পুনরাবৃত্তিই বলা যায়। আসন্ন অসম ও পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভা নির্বাচনেও এর ইতিবাচক প্রভাব পড়বে বলে স্পষ্ট করেন তিনি।