BARTALIPI, বার্তালিপি , Bengali News, Latest Bengali News, Bangla Khabar, Bengali News Headlines, বাংলা খবর
Friday, 26 Feb 2021  শুক্রবার, ১৪ ফাল্গুন ১৪২৭
Bartalipi, বার্তালিপি, Bengali News Portal, বাংলা খবর

BARTALIPI, বার্তালিপি , Bengali News, Latest Bengali News, Bangla Khabar, Bengali News Headlines, বাংলা খবর

বাংলা খবর

বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় বাংলা নিউজ পোর্টাল

বিজেপিকে বার্তা দিয়ে মিজো আগ্রাসনের বিরুদ্ধে বনধ সর্বাত্মক কাছাড়ে

Bartalipi, বার্তালিপি, বিজেপিকে বার্তা দিয়ে মিজো আগ্রাসনের বিরুদ্ধে বনধ সর্বাত্মক কাছাড়ে

অসমের কাছাড় সীমান্তে ক্রমাগত মিজো আগ্রাসন ও মিজো দুষ্কৃতী তাণ্ডবের বিরুদ্ধে ছাত্র সংগঠন আকসার ডাকা ১২ ঘন্টার বরাক বন্ধ বনধ সর্বাত্মক হয়েছে শহর শিলচরে। সফল হয়েছে গ্রাম কাছাড়েও। কংগ্রেস এই বনধকে নৈতিক সমর্থন জানিয়েছিল। কিন্তু শাসক বিজেপি বনধের বিরোধিতা করলেও এতে কোনও প্রভাব পড়েনি। সাধারণ জনতা সাড়া দেওয়ায় শাসক দলকে রীতিমতো বার্তা দিয়ে প্রায় পিকেটার ছাড়াই সফল হয়েছে বনধ। বনধ সফল করতে কাছাড়ের জেলাশাসক কার্যালয়ের সামনে গ্রেফতার হয়েছেন আকসার কেন্দ্রীয় মুখ্য উপদেষ্টা রূপম নন্দী পুরকায়স্থ। গ্রেফতার হয়েছেন আমরা বাঙালির নেতা সাধন পুরকায়স্থ, শরিফুজ্জামান লস্কর সহ আরও কয়েকজন। বনধ ডাকা হয়েছিল ভোর পাঁচটা থেকে সন্ধে পাঁচটা পর্যন্ত। বনধে মুর্দাবাদ ধ্বনি ওঠে মিজোরাম সরকারের বিরুদ্ধে।


অসম মিজোরাম সীমান্তে লাগাতার মিজো আগ্রাসন, মিজো দুষ্কৃতীদের হাতে লায়লাপুর ফ্রেঞ্চ নগরের বাসিন্দা ইন্তাজুল আলি লস্করের মর্মান্তিক মৃত্যু এবং মিজো পুলিশ বাহিনীর অসমের জমি দখল এর বিরুদ্ধে শনিবার বনধ ডাকে ছাত্র সংগঠন অল কাছাড় করিমগঞ্জ হাইলাকান্দি স্টুডেন্টস অ্যাসোসিয়েশন আকসা। বনধে এদিন সকাল থেকেই শিলচরে ঝাঁপ বন্ধ ছিল সব দোকানপাটের। বন্ধ ছিল অফিস-আদালত বাজার হাট। কেন্দ্র ও রাজ্য সরকারের কোনও অফিসই এদিন খুলতে দেখা যায়নি। সবচেয়ে বড় কথা হল, বিজেপি বনধের বিরোধিতা করলেও জোরদারভাবে পিকেটার নামিয়ে বন্ধ সফল করতে হয়নি আয়োজক সংগঠন কে। বিভিন্ন ব্যবসা ও যানবাহনের মালিক এবং চালক সংগঠন আগে থেকেই বনধকে সমর্থন জানিয়ে রাস্তায় গাড়ি-ঘোড়া না নামানোয় সকাল থেকেই রাস্তাঘাট ছিল শুনশান। ইতঃস্তত খুব সীমিত সংখ্যক মোটর বাইক স্কুটার কিংবা ছোট গাড়ি চললেও এতে বনধ কোনও ভাবে ব্যর্থ হয়নি। 


শিলচর শহরের দেবদূত, প্রেমতলা, রাঙ্গিরখাড়ি, ন্যাশনাল হাইওয়ে এসব কোনও জায়গাতেই এদিন সকাল থেকে পিকেটার চোখে পড়েনি। শুধু তাই নয় সাধারণ মানুষ থেকে অফিসকর্মীরা রাস্তাঘাটে না বেরোনোয় বনধ সফল করতে রাস্তায় নামতেই হয়নি পিকেটারদের। জেলাশাসক কার্যালয়ের সামনে দাঁড়িয়ে রূপম নন্দী পুরকায়স্থ, সাধন পুরকায়স্থরা হুংকার দিয়েছেন অসমের বেদখল জমি মিজোরাম না ছাড়লে পরিস্থিতি আরো ভয়াবহ হবে। তীব্র থেকে তীব্রতর আন্দোলনে নামবে সংগঠন। মিজো আগ্রাসন শুরু হওয়ার পর চার সপ্তাহ কেটে গেলেও কোনোও সদর্থক ভূমিকা নিচ্ছে না মিজোরাম সরকার। কেন্দ্র ও অসম সরকার শান্তি প্রক্রিয়ার ভিত্তিতে বারবার সমস্যা সমাধানের চেষ্টা চালালেও মিজোরাম সরকার জমি বিবাদ জিইয়ে রেখে অসমের জমি দখলে রেখে চরম অসহযোগিতা চালিয়ে যাচ্ছে। কড়া বার্তা দিয়ে অকসার কর্মকর্তারা বলেছেন অসমের ধৈর্যের সীমা পেরিয়ে গেলে এর পরিণাম ভালো হবে না।


না, শুধু শহর শিলচরই নয়, শনিবার বনধ সফল হয়েছে গ্রাম কাছাড়ের বিভিন্ন অংশেও। এদিন মিজোরাম সীমান্তের লায়লাপুর এলাকায় বনধ হয়েছে সর্বাত্মক। বনধের সমর্থনে লায়লাপুরে স্লোগান দিয়ে মিছিল করেছে কয়েকটি বামপন্থী শ্রমিক সংগঠন।  বন্ধ সমর্থনে শহর ও গ্রামাঞ্চলে প্রচুর পোস্টার লাগানো হয়। গ্রামাঞ্চলে দোকান বাজার সরকারি কার্যালয় ছিল বন্ধ।