BARTALIPI, বার্তালিপি , Bengali News, Latest Bengali News, Bangla Khabar, Bengali News Headlines, বাংলা খবর
Monday, 01 Mar 2021  সোমবার, ১৭ ফাল্গুন ১৪২৭
Bartalipi, বার্তালিপি, Bengali News Portal, বাংলা খবর

BARTALIPI, বার্তালিপি , Bengali News, Latest Bengali News, Bangla Khabar, Bengali News Headlines, বাংলা খবর

বাংলা খবর

বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় বাংলা নিউজ পোর্টাল

সিএএ মুসলিম বিরোধী নয় : ভাগবত, আমরা শিশু নই, পাল্টা ওয়েইসির

Bartalipi, বার্তালিপি, সিএএ মুসলিম বিরোধী নয় : ভাগবত, আমরা শিশু নই, পাল্টা ওয়েইসির

নির্বাচনী মরশুম শুরু হওয়ার মুখে সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন বা সিএএ নিয়ে ফের জাতীয় স্তরে বিতর্ক উসকে উঠল। উসকে দিলেন মোহন ভাগবত। সংঘের পরম্পরা মেনে রবিবার আরএসএস প্রধান তাঁর বিজয়াদশমীর ভাষণে বলেন, সিএএ আদৌ মুসলিমদের বিরুদ্ধে নয়। সিএএ বিরোধী আন্দোলনকে 'সংগঠিত হিংসা' হিসেবে অভিহিত করে ভাগবত বলেন,  করোনার জন্য সিএএ-র কাজ থমকে গিয়েছে, কিন্তু দাঙ্গাবাজ একটি শক্তি ফের মুসলিম ভাইদের প্ররোচিত করার চেষ্টা শুরু করে দিয়েছে। 

প্রত্যাশিতভাবেই সংঘপ্রধানের এই বক্তব্যের বিরুদ্ধে মুখ খুলেছেন আসাদউদ্দিন ওয়েইসি। এআইএমআইএম সভাপতি সাংসদ ওয়েইসি বলেন, মুসলিমরা দুগ্ধপোষ্য শিশু নয় যে মোহন ভাগবতের এই বক্তব্য মেনে নেবেন। কোন উদ্দেশ্যে এনআরসি-সিএএ হল, তা আগে খোলসা করুন সংঘপ্রধান।

রবিবার নাগপুরে সংঘের মুখ্য কার্যালয়ে বিজয়াদশমী উপলক্ষে ভাষণ দেন মোহন ভাগবত। তিনি বলেন, সিএএ কোনও বিশেষ ধর্মীয়  সম্প্রদায়ের বিরুদ্ধে নয়। অপপ্রচার করে মুসলিম ভাইদের ভুল বোঝানো হয়েছে। করোনার জন্য সিএএ থমকে গেছে, কিন্তু ফের কুচক্রীরা সংঘর্ষ বাধানোর চেষ্টা করছে। এই অপশক্তিকে সতর্ক করে দিয়ে ভাগবত বলেছেন, এটা কারোর ভুলে যাওয়া উচিত নয় যে সংবিধান মেনে এই আইনটি প্রণয়ন করা হয়েছে। প্রতিবেশী রাষ্ট্রের ধর্মীয় নির্যাতনের শিকার হয়ে সেই দেশগুলোর যেসব সংখ্যালঘু মানুষ ভারতে আশ্রয় নিয়েছেন, তাঁদের নাগরিকত্ব দেওয়ার লক্ষ্যেই এই আইন। কোনও বৈধ ভারতীয়ের নাগরিকত্ব কেড়ে নেওয়ার কোনও সংস্থানই নেই এই আইনে। কিন্তু সিএএ বিরোধীরা আমাদের মুসলিম ভাইদের এটাই বোঝাতে চাইছে যে এই আইনের উদ্দেশ্য হচ্ছে মুসলিম জনসংখ্যা হ্রাস করা। সিএএ-কে হাতিয়ার করে প্রতিবাদের নামে সংগঠিত হিংসা চালানো হয়েছে। করোনার জন্য সব কিছু আটকে গেছে। কিন্তু দাঙ্গাবাজ ও সুযোগসন্ধানীরা ফের আগুন লাগাতে চাইছে।  

ভাগবতের বক্তব্যের তীব্র বিরোধিতা করে ওয়েইসি বলেছেন, আমরা বাচ্চা নই যে কিছু বুঝি না। কী উদ্দেশ্যে সিএএ ও এনআরসি, এ নিয়ে কোনও উচ্চবাচ্য করে না বিজেপি। সিএএ যদি মুসলিম বিরোধী না হয় তা হলে এই আইন থেকে সব ধরনের ধর্মীয় উল্লেখ ছেঁটে বাদ দিয়ে দেওয়া হোক। 

২৮ অক্টোবর বিহারে নির্বাচন। এরপর অসম, পশ্চিমবঙ্গের মতো রাজ্যেও বিধানসভা নির্বাচন। এই দুটো রাজ্যেই সিএএ বিরোধিতা তুঙ্গে। এই পরিস্থিতিতে মোহন ভাগবতের বিজয়াদশমী ভাষণ নতুন করে সিএএ বিরোধিতা উসকে দিল।